ঢাকা, শনিবার   ১৬ অক্টোবর ২০২১,   কার্তিক ১ ১৪২৮

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ২১:০৫, ২৮ মে ২০২০

ভারতে সাতটি রাজ্যে ছড়িয়েছে পঙ্গপাল, ঝুঁকিতে আছে গ্রীষ্মকালীন ফসল

ভারতে হানা দিয়েছে পঙ্গপাল। ইতোমধ্যে সাতটি রাজ্যের প্রায় ৫০ হাজার হেক্টর ফসলি জমি ধ্বংস করেছে এই পতঙ্গটি। ভারতের রাজস্থান, মধ্যপ্রদেশ, গুজরাট ও হরিয়ানার পর এবার মহরাষ্ট্র, উত্তরপ্রদেশ এবং পাঞ্জাবে ফসল সাবাড় করছে এই দলটি।

এদিকে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নতুন করে এর ব্যাপকতা যেভাবে অতি দ্রুত গতিতে ছড়াতে শুরু করেছে কর্তৃপক্ষ যদি জুনের মধ্যে তা নিয়ন্ত্রণে আনতে না পারে তাহলে ধান, ভুট্টা, বেত, তুলা ও সয়াবিনসহ হাজার হাজার হেক্টর জমির ফসল ধ্বংস হয়ে যাবে।

অন্যদিকে দেশটির সরকার ও কৃষি বিষেশজ্ঞরা  বলছেন অন্য কথা। তারা বলছেন, এটা দুই মৌসুমের মধ্যবর্তী সময়। এক ফসল তোলা হয়েছে, সামনে নতুন ফসল বোনা হবে। তাই এখন পঙ্গপাল ততটা ক্ষতি করতে পারবে না।

এক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞরা হুঁশিয়ারিও দিয়ে রেখেছেন যে, গ্রীষ্মকালীন ফসল যাতে গ্রাস করে ফেলতে না পারে তা নিশ্চিত করতে আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই ভারতের কেন্দ্রীয় ও রাজ্য সরকারগুলোকে পঙ্গপালের হানার ব্যাপকতা নিয়ন্ত্রণের মধ্যে আনতে হবে। আর তা না হলে এর ক্ষতি হবে বিপুল।

সাউথ এশিয়া বায়োটেক সেন্টারের পরিচালক ভাগীরথ চৌধুরী বলেন, ‌‘অভূতপূর্ব মাত্রায় পঙ্গপালের আক্রমণ শুরু হলেও আপাতত ফসলের বড় ধরনের ক্ষতি হবে বলে মনে করছি না। এখনই তা নিয়ন্ত্রণের মোক্ষম সময়। আর তা না হলে গ্রীষ্মকালীন ফসলগুলো আমরা হয়তো সংরক্ষণ করতে পারবো না।

সাতটি রাজ্যে পঙ্গপাল থাকলেও পরবর্তীতে সারা দেশে ছড়িয়ে পড়ার আশংকা থেকে যাচ্ছে। কেননা প্রথম হানা দিয়েছে পশ্চিম ভারতের রাজস্থান, গুজরাট ও মহারাষ্ট্রে। সেখান থেকে মধ্যাঞ্চলের মধ্যপ্রদেশ ও পাঞ্জাবে। এরপর তা ছড়িয়েছে উত্তরের হরিয়ানা ও দেশটির সবচেয়ে বড় রাজ্য উত্তরপ্রদেশে।

মূলত তাপমাত্রা যত বেশি হবে পঙ্গপাল তত দ্রুত ছড়িয়ে পড়বে।’এদিকে পঙ্গপাল নিধনে ১১টি কন্ট্রোল রুম চালু করেছে ভারত। সেখান থেকে বিশেষ স্প্রে মেশিন ব্যবহার করে কীটনাশক ছিটানোর কাজ চলছে। এমনটাই জানালেন ভাগীরথ চৌধুরী।

আইনিউজ /এসডিপি

Green Tea
সর্বশেষ
জনপ্রিয়