ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ০২ ডিসেম্বর ২০২১,   অগ্রাহায়ণ ১৮ ১৪২৮

বিনোদন ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৬:৩৩, ২৩ অক্টোবর ২০২১
আপডেট: ১৭:১৪, ২৪ অক্টোবর ২০২১

একজন হানিফ সংকেত

হানিফ সংকেত

হানিফ সংকেত

দেশের বিনোদন অঙ্গনের জনপ্রিয় ব্যক্তিত্ব হানিফ সংকেত। তিনি একাধারে পরিচালক, উপস্থাপক, লেখক ও প্রযোজক। তার পরিচালিত ও উপস্থাপিত বিটিভির বিনোদন ও সামাজিক সচেতনতামূলক ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ‘ইত্যাদি’ এখনও জনপ্রিয়তার শীর্ষে।

আজ শনিবার, ২৩ অক্টোবর হানিফ সংকেতের জন্মদিন। ১৯৫৮ সালের এই দিনে বরিশালে জন্মগ্রহণ করেন হানিফ সংকেত।

বাবার চাকরির সুবাদে বিভিন্ন স্থানে বড় হয়েছেন হানিফ সংকেত। ছোট বেলাতেই তার একটি বিশেষ প্রতিভা সবাইকে মুগ্ধ করত। সেটা হলো কথা বলা। নানা গল্প, বক্তব্য তিনি আকর্ষণীয়ভাবে বলতে পারতেন। প্রকৌশলে পড়াশোনা শেষে হানিফ সংকেত যোগ দেন বাংলাদেশ মহাকাশ গবেষণা ও দূর অনুধাবন প্রতিষ্ঠানে।

চাকরি করলেও উপস্থাপনা নিয়ে একটা ভালোলাগা, ভাবনা হানিফ সংকেতের ছিল। ১৯৭৭ সাল থেকে ১৯৮৫ সাল পর্যন্ত বিটিভিতে একটি ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান প্রচারিত হত। নাম ছিল ‘যদি কিছু মনে না করেন’। প্রয়াত উপস্থাপক ফজলে লোহানি বিভিন্ন স্থানে গিয়ে অনুষ্ঠানটির দৃশ্য ধারণ করতেন। এই অনুষ্ঠানেই নিজের প্রতিভা বিকাশের সুযোগ পান হানিফ সংকেত।

উপস্থাপনায় নিজের প্রতিভা বিকশিত করার পাশাপাশি পরিচালনার দিকটাও ওই সময়ে আয়ত্ব করে নেন তিনি। এর ফলে ১৯৮৯ সালে নিজেরই পরিকল্পনা ও সঞ্চালনায় শুরু করেন নতুন ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান। নাম দেন ‘ইত্যাদি’।

তখন তিন মাস পর পর ইত্যাদি প্রচার হতো বিটিভিতে। সমাজের নানা অসঙ্গতি, সমস্যা, ভালো দিক, অনুপ্রেরণাদায়ক ব্যক্তির গল্প উঠে আসত ম্যাগাজিন অনুষ্ঠানটিতে। তবে যেই জাদুতে এটি দর্শকদের কাছে তুমুল জনপ্রিয়তা পায়, সেটা হলো হানিফ সংকেতের উপস্থাপনার কৌশল। তার কথা বলার ভঙ্গিমা মুগ্ধ করে সবাইকে। ধীরে ধীরে ইত্যাদি হয়ে যায় দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান। যা এখনো সাফল্যের সঙ্গে প্রচার হচ্ছে। 

হানিফ সংকেত নিজের কাজের ব্যাপারে খুব সচেতন একজন মানুষ। ক্যামেরার সামনে খুব বেশি এলেই যে তারকা বা ব্যক্তিত্ব হওয়া যায় না তার উৎকৃষ্ট উদাহরণ হানিফ সংকেত।

নাটকেও সিদ্ধহস্ত হানিফ সংকেত। তার পরিচালিত জনপ্রিয় নাটকের মধ্যে ‘আয় ফিরে তোর প্রাণের বারান্দায়’, ‘দুর্ঘটনা’, ‘তোষামোদে খোশ আমোদে’, ‘কিংকর্তব্য’, ‘কুসুম কুসুম ভালোবাসা’, ‘শেষে এসে অবশেষে’ উল্লেখযোগ্য।

চলচ্চিত্রেও অভিনয় করেছেন হানিফ সংকেত। বেশ কয়েকটি ব্যঙ্গ ও রম্য রচনা লিখেছেন তিনি। ‘চৌচাপটে’, ‘এপিঠ ওপিঠ’, ‘ধন্যবাদ’, ‘অকাণ্ড কাণ্ড’, ‘খবরে প্রকাশ’, ‘ফুলের মতো পবিত্র... ’, ‘প্রতি ও ইতি’, ‘আটখানার পাটখানা’ অন্যতম।

এ ছাড়া তার লিখিত রম্য সাহিত্য পাঠক সমাজে ব্যাপক জনপ্রিয়।

সামাজিক কার্যক্রমের জন্য ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১০ সালে একুশে পদক পুরস্কার পান হানিফ সংকেত। পরিবেশ শিক্ষা ও প্রচারের জন্য ২০১৪ সালের জাতীয় পরিবেশ পদক দেয়া হয় তাকে। এ ছাড়া তিনি দেশে-বিদেশে বহু পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন।

আইনিউজ/এসডিপি 

আইনিউজ ভিডিও

‘ইত্যাদি’ এবার সোনারগাঁয়ে

 

গিনেস রেকর্ড বুক: এবার স্থান পাবে কি টুনটুনি?

চিনির কারণে প্রতিবছর সাড়ে তিন কোটি মানুষের মৃত্যু ঘটে

Green Tea
সর্বশেষ
জনপ্রিয়