ঢাকা, শুক্রবার   ১৮ জুন ২০২১,   আষাঢ় ৪ ১৪২৮

লাইফস্টাইল ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৫:৪৭, ৮ জুন ২০২১
আপডেট: ১৭:৫৪, ৮ জুন ২০২১

তারুণ্য ধরে রাখতে সাহায্য করে কাঁকরোল

বিভিন্ন রোগ থেকে সুস্থ থাকতে চিকিৎসকরা প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় শাক-সবজি রাখতে বলেন। সেই সঙ্গে যেকোনো মৌসুমি সবজিও খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। যার মধ্যে অন্যতম কাঁকরোল। 

কুমড়া গোত্রীয় একটি সবজি কাঁকরোল। মূলত গ্রীষ্ম ও বর্ষাকালে আমাদের দেশে চাষ হয়ে থাকে এই সবজিটি। ভেতরের শাঁস সাদাটে সবুজ, বিচি নরম ও ছোট। কাঁকরোল তরকারী, ভাজি এবং ভর্তা করে খাওয়া যায়।

ছোট্ট এই সবজটিতে রয়েছে প্রচুর ভিটামিন, খনিজ, কার্বোহাইড্রেট, ফাইবার, লুটেইন, অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের মতো একাধিক প্রয়োজনীয় উপাদান। যেগুলো আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য খুবই উপকারী।

এছাড়াও কাঁকরোল আমাদের সুস্থ থাকতে বিভিন্নভাবে সাহায্য করে। যেমন-

তারুণ্য ধরে রাখে

কাঁকরোলে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ‘এ’ এবং ‘সি’ থাকায় ত্বকের যেকোনো রোগ নিরাময় করতে এর ভূমিকা অনস্বীকার্য। কাঁকরোলে রয়েছে প্রচুর হাইপোগ্লাইসেমিকের গুণাগুণ। যা কোলাজেনের গঠনকে পুনর্নির্মাণের মাধ্যমে বয়সের ছাপ প্রতিরোধেও ভূমিকা রাখে। এছাড়াও রয়েছে অ্যান্টি অক্সাইড যা বাইরের রোদ ধোঁয়া, ধুলো এবং দূষণের হাত থেকে আমাদের ত্বককে রক্ষা করে।

দৃষ্টিশক্তি বাড়ায়

কাঁকরোল চোখের জন্য খুবই উপকারী। কারণ এতে আছে ভিটামিন, বিটাক্যারোটিন ও অন্যান্য উপাদান থাকে, যা দৃষ্টিশক্তির উন্নতিতে সাহায্য করার পাশাপাশি চোখের ছানি প্রতিরোধেও সাহায্য করে।

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করে

হাইপোগ্লাইসেমিক গুণাগুণ রয়েছে কাঁকরোলে। এটি অগ্নাশয়ের বিটাসেলকে সুরক্ষিত রাখে ও পুনর্গঠনে সাহায্য করে। এছাড়া এটি ইন্সুলিন নিঃসরণ ও সংবেদনশীলতা বাড়ায়, যা ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে।

ক্যান্সার প্রতিরোধ করে

কাঁকরোলের পুষ্টি উপাদান ক্যান্সার প্রতিরোধে সাহায্য করে এবং ক্যান্সার কোষের সংখ্যা বৃদ্ধিকে ধীর গতির করতে পারে। এবং এতে নির্দিষ্ট একটি প্রোটিন থাকে যা ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধিকে প্রতিহত করতে সাহায্য করে। দেহের ফ্রি র‍্যাডিকেলের সংখ্যা কমাতে সাহায্য করে এবং ক্যান্সার প্রতিরোধেও সাহায্য করে।

বিষণ্ণতা প্রতিহত করে

কাঁকরোলে সেলেনিয়াম, মিনারেল এবং ভিটামিন থাকে, যা নার্ভাস সিস্টেমের উপর গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব রাখে। তাই বিষণ্ণতার বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে সাহায্য করে কাঁকরোল।

খুশখুশে কাশি কমায়

আমাদের ঋতু পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে ভাইরাস ও ব্যাকটেরিয়ার আক্রমণে ছোট-বড় সবারই কাশির সমস্যা দেখা দেয়। তাই বাচ্চাদের অ্যালার্জি এবং অন্য কোনো সমস্যা দেখা দিলে কাঁকরোল খাওয়ালে অনেক রোগের আক্রমণের হাত থেকে রেহাই পাওয়া যায় খুব সহজেই।

অ্যানিমিয়া প্রতিহত করে

কাঁকরোলে প্রচুর আয়রন থাকার পাশাপাশি ভিটামিন-সি ও ফলিক এসিড থাকে ফলে অ্যানেমিয়ার প্রতিহত করতে সাহায্য করে।

হজমের সমস্যা দূর করে

কাঁকরোলে হাইফাইবার এবং প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে যা হজমের গোলমাল এবং কোষ্ঠকাঠিন্য ভালো করতে সাহায্য করে।

আইনিউজ/এসডিপি 

Green Tea
সর্বশেষ
জনপ্রিয়