ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ০৭ জুলাই ২০২২,   আষাঢ় ২৩ ১৪২৯

মো. গোলাম মোর্শেদ

প্রকাশিত: ১৮:৫২, ৮ মে ২০২২
আপডেট: ১৬:৩৩, ১০ মে ২০২২

Duolingo | ডুওলিঙ্গো : উন্নত দেশে উচ্চশিক্ষার সিঁড়ি

কোভিডের পর থেকেই যেন বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের বিদেশ গিয়ে লেখাপড়ার হিড়িক পড়েছে। বিশেষত যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যও দিচ্ছে বিরাট এক সুযোগ। আর এসব দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো থেকে অফার লেটার পেতে অনেকেই ঝুঁকছেন Duolingo (ডুওলিঙ্গো) এর দিকে। কিন্তু Duolingo আসলে কী? Duolingo কেন প্রয়োজন? Duolingo এ অংশগ্রহণ করতে কী কী লাগবে? এর ফিস কত হতে পারে? কোথায় গিয়ে Duolingo পরীক্ষা দেওয়া যায়? কীভাবেই বা এর প্রস্তুতি নিবো? স্টুডেন্ট ভিসা পেতে কীভাবে Duolingo কার্যকর? চলুন জেনে আসা যাক। 

Duolingo (ডুওলিঙ্গো) কী

ডুওলিঙ্গো ইংলিশ টেস্ট। Duolingo মূলত একটি কম্পিউটার ভিত্তিক ইংরেজী ভাষা যাচাই করার পদ্ধতি। আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন এ পরীক্ষাটি দ্বারা যেকোনো এলাকা বা দেশের শিক্ষার্থীদের ইংরেজী ভাষার ওপর দক্ষতা নিরূপণ করা হয়। পরীক্ষাটি সাধারণত IELTS বা TOEFL এর ধাঁচে হয়ে থাকে। 

Duolingo কেন প্রয়োজন

মৌলভীবাজারের Duolingo (ডুওলিঙ্গো) হেল্প সেন্টার এফ এস গ্লোবালের চেয়ারম্যান ফয়সাল আলী এ প্রসঙ্গে বলেন, এই পরীক্ষাটি শিক্ষার্থীদের জন্য খুবই উপযোগী এবং হাজারো শিক্ষার্থী এই পরীক্ষার ফলাফল জমা দিয়ে ইউরোপ ও আমেরিকার বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর অফার লেটার পাচ্ছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অর্ধশতাধিক বিশ্ববিদ্যালয়সহ যুক্তরাজ্য, কানাডা, ফ্রান্স, জার্মানী, আয়ারল্যান্ড, জাপান, অস্ট্রিয়া, স্পেন প্রমুখ উন্নত বিশ্বের দেশের শতাধিক বিশ্ববিদ্যালয় Duolingo এর ফলাফল ইংরেজী ভাষার দক্ষতার প্রমাণ হিসেবে গ্রহণ করছে।  

তবে Duolingo পরীক্ষার ফলাফলের মেয়াদ IELTS এর মতই দুই বছর পর্যন্ত স্থায়ী হয়।

কারা Duolingo দিতে পারবেন

যেকোনো বয়সের ব্যক্তিরাই এই পরীক্ষায় অংশ নিতে পারবেন তবে এতে প্রধানত শিক্ষার্থীদের ঝোঁক বেশি। 

Duolingo পরীক্ষা দিতে কী কী প্রয়োজন, কিভাবে রেজিস্ট্রেশন করবেন 

পরীক্ষায় রেজিস্ট্রেশন করতে পাসপোর্ট, জাতীয় পরিচয়পত্র অথবা ড্রাইভার লাইসেন্স আবশ্যক। এর দ্বারা আপনি Duolingo এর ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে ই-মেইল এড্রেস সাবমিট করে অতি সহজ প্রক্রিয়ায় রেজিস্ট্রেশন করতে পারবেন। 

যেহেতু এটি কম্পিউটার ভিত্তিক পরীক্ষা তাই এতে কাগজ, কলম বা পেন্সিল নিয়ে ঝামেলা পোহাতে হয় না।

Duolingo এর রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন 

Duolingo এর ফিস বা খরচ কত

বর্তমানে একটি Duolingo পরীক্ষার নির্ধারিত ফিস হচ্ছে ৪৯ মার্কিন ডলার বা ৪৩০০ টাকা। তবে অভিজ্ঞতা না থাকার কারণে অনেকেই দ্বিতীবারের জন্য পরীক্ষা দিতে চান। এক্ষেত্রে একসাথে দুইটি পরীক্ষার জন্য রেজিস্ট্রেশনের সুবিধার্থে মোট ৮৮ মার্কিন ডলার (৪৯+৩৯) অথবা ৭৬০০ টাকা পরিশোধ করতে হবে। অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন করতে চাইলে ভিসা/মাস্টার কার্ড ব্যবহার করে পেমেন্ট করা যায়। তবে এতে কারো অসুবিধা হলে নিকটস্থ Duolingo (ডুওলিঙ্গো) হেল্প সেন্টারের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন।

Duolingo এর মডিউল

Duolingo মূলত চারটি মডিউলের ওপর প্রতিষ্ঠিত

  • রিডিং 
  • রাইটিং
  • লিসেনিং 
  • স্পিকিং  

Duolingo কয়টি ধাপে নেওয়া হয়

পরীক্ষাটি সাধারণত ১ ঘন্টাব্যাপী। যার প্রথম ৪৫ মিনিট কম্পিউটার ভিত্তিক এডাপ্টিভ টেস্ট এবং পরবর্তীতে ভিডিও ইন্টারভিউ নেওয়া হয়ে থাকে।  

মূল পরীক্ষায় নিম্নোক্ত ধরনের প্রশ্ন আসতে পারে

  • Read and Select – এই ধরনের প্রশ্নে কিছু শব্দ দেওয়া থাকে যার মধ্য থেকে শুদ্ধ বানানের শব্দগুলোকে মাউস দ্বারা ক্লিক করে কনফার্ম করতে হয়।

  • Read and Complete - একটি প্যাসেজে অনেকগুলো অসম্পূর্ণ শব্দ দেওয়া থাকে যেগুলো সামঞ্জস্যপূর্ণভাবে পূরণ করতে হয়।

  • Listen and Select – এই প্রশ্নে অনেকগুলো শব্দের উচ্চারণ দেওয়া থাকবে যার মধ্য থেকে সঠিক শব্দগুলোকে আগের মত মাউস দ্বারা বেছে নিতে হবে।
  • Listen and Type – একটি বাক্য পড়ে শোনানো হবে যা সর্বোচ্চ তিনবার শুনে টাইপ করতে হবে।
  • Read Aloud – স্ক্রিনে একটি বাক্য ভেসে উঠবে যা সজোরে পড়তে হবে যাতে কম্পিউটার তা রেকর্ড করতে পারে।
  • Read, then Write – এই প্রশ্নে একটি টপিক দেওয়া থাকবে যা নির্ধারিত সময়ের মধ্যে পড়ে এ সম্পর্কে টাইপ করতে হবে।
  • Read, then Speak – এই প্রশ্নে একটি টপিক দেওয়া থাকবে যা নির্ধারিত সময়ের মধ্যে পড়ে এ সম্পর্কে স্পিচ দিতে হবে যার ভিডিও কম্পিউটার ধারণ করবে।
  • Listen, then Speak – ইংরেজী শোনা এবং বলার দক্ষতা যাচাইয়ের জন্য এ ধাপে একটি অডিও শোনানো হবে যা শুনে অন্ততপক্ষে ৩০ সেকেন্ড আলোচনা করতে হবে।
  • Write About The Photo – কম্পিউটার স্ক্রিনে একটি বিষয়ভিত্তিক ছবি দেখানো হবে যা সম্পর্কে ন্যুনতম একটি পূর্নাঙ্গ লাইন লিখতে হবে।
  • Speak About The Photo – পূর্বের মতই স্ক্রিনে একটি বিষয়ভিত্তিক ছবি দেখানো হবে যা সম্পর্কে অন্ততপক্ষে ৩০ সেকেন্ড আলোচনা করতে হবে। 

Duolingo স্কোরিং সিস্টেম

Duolingo মূলত ১৬০ মার্কসের মধ্যে হয়ে থাকে। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে ৯৫-১১০ মার্কসকে হ্যান্ডসাম ফিগার হিসেবে বিবেচনা করা হয়। তবে প্রতিটি মডিউলে সর্বনিম্ন ৯৫ মার্কস থাকা আবশ্যক।

Duolingo এর ফলাফল

মূলত যে ই-মেইল এড্রেস দিয়ে রেজিস্ট্রেশন করবেন তার মাধ্যমেই আপনার অনলাইনে ফলাফল পাবেন। সাধারণত মূল পরীক্ষার ৪৮ ঘন্টার মধ্যে ফলাফল পাওয়া যাবে। 

Duolingo ফলাফল ২ দিনের ভেতরে না পেলে কি করবেন

ফলাফল ২ দিন বা ৪৮ ঘন্টার মধ্যে না পেলে Duolingo কর্তৃপক্ষকে ই-মেইল করা যাবে। এতে তারা প্রয়োজনীয়্ ব্যবস্থা নিতে পারবে। অথবা নিকটস্থ Duolingo হেল্প সেন্টারের সাথে যোগাযোগ করতে পারবেন। Duolingo ফলাফল নিয়ে সন্দেহ থাকলে একই পদ্ধতি অবলম্বন করা যাবে। এতে অতিরিক্ত কোনো পেমেন্ট করতে হবে না।

Duolingo এর সুবিধাসমূহ

  • Duolingo অন্যান্য ইংরেজী যাচাই করার পরীক্ষাগুলো থেকে অনেক কম ব্যয়বহুল।
  • এই পরীক্ষা যেকোনো সময়, যেকোনো জায়গা থেকে দেওয়া যেতে পারে। 
  • মাত্র ৪৮ ঘন্টার ভেতরে ই-মেইলে ফলাফল পাওয়ার সুবিধা।

উল্লেখ্য, Duolingo পদ্ধতি দ্বারা অফার লেটার পেতে কোনো সমস্যা হওয়ার অভিযোগ এখনো আসে নি। তবে এ ব্যাপারে যেকোনো অভিযোগ নিকটস্থ হেল্প সেন্টারে দিলে তারা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবে।

 মো. গোলাম মোর্শেদ, আইনিউজ

Green Tea
সর্বশেষ
জনপ্রিয়