ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১,   ফাল্গুন ১৩ ১৪২৭

কৃষি ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৮:৩৬, ১ ফেব্রুয়ারি ২০২১

‘সাউ কিনোয়া-১’: কৃষিক্ষেত্রে এক নতুন সম্ভাবনা

শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় কৃষিতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক ড. পরিমল কান্তি বিশ্বাস শর্করা, প্রোটিন, ভিটামিন ও খনিজে ভরপুর সুপারফুড কিনোয়া-১ জাত উদ্ভাবন করেছেন। কিনোয়া দানা পুষ্টি সমৃদ্ধতার কারণে অন্যতম সুপার ফুড হিসেবে স্বীকৃত। যা ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য খুবই উপকারী।

ইতিমধ্যে জাতীয় বীজ বোর্ড (এনএসবি) অনিয়ন্ত্রিত ফসলের জাত নিবন্ধনের আওতায় উদ্ভাবিত এ জাতটির নিবন্ধন দিয়েছে। সাউ কিনোয়া-১ (SAU-Quinoa-1) নামে নতুন এ জাতটি নিবন্ধিত হয়। জাতটির নিবন্ধ নম্বর ০৫(৪৬)-০১/২০২০।

গবেষক অধ্যাপক ড. পরিমল কান্তি বিশ্বাস জানিয়েছেন খরা ও লবনাক্ত অঞ্চলসহ সারাদেশে রবি মৌসুমে এ ফসলটি চাষ করা সম্ভব।

বৈশ্বিক জলবায়ু পরিবর্তনের সর্বাধিক ঝুঁকিপূর্ন দেশসমূহের মধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম। সেক্ষেত্রে খরা ও লবনাক্ততা সহনশীল ফসল হিসেবে সম্ভাবনাময় হয়ে উঠতে পারে নতুন ফসল সাউ কিনোয়া-১।

কিনোয়ার বৈজ্ঞানিক নাম Chenopodium quinoa। ফসলটি Amaranthaceae পরিবারভূক্ত একটি দানাশস্য। এতে ১৪ থেকে ১৮ শতাংশ প্রোটিন, ক্যালসিয়াম, আয়রণ, জিংক, কপার, ফসফরাস, পটাশিয়াম এবং ম্যাঙানিজ রয়েছে। রয়েছে সকল প্রকার প্রয়োজনীয় এমাইনো এসিড।

খ্রীষ্টপূর্ব ৫০০০ বছর পূর্ব থেকেই ল্যাটিন আমেরিকাভূক্ত দেশগুলোতে দানা, ফ্লেক্স, পাস্তা, রুটি, বিস্কুট, বেভারেজ হিসেবে কিনোয়া ব্যবহার করে আসছে ফসলটির পুষ্টি সমৃদ্ধতার কারণে।

বর্তমানে উত্তর আমেরিকা, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, ইতালী, সুইডেন, ডেনমার্ক, নেদারল্যান্ডস, কানাডা, অষ্ট্রেলিয়া, চীন, থাইল্যান্ড, ভারতসহ ৯৫ টিরও অধিক দেশে কিনোয়া চাষাবাদ হচ্ছে।

Green Tea
সর্বশেষ
জনপ্রিয়