ঢাকা, শুক্রবার   ২২ অক্টোবর ২০২১,   কার্তিক ৬ ১৪২৮

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৭:১৮, ৯ আগস্ট ২০২১
আপডেট: ১৭:৫১, ৯ আগস্ট ২০২১

অপরাধী হয়েও ৯৯৯ কল, অতঃপর গ্রেফতার

নবীগঞ্জ উপজেলার করগাঁও ইউনিয়নের জয়ন্তুরী গ্রামের চন্দন বৈদ্য ও বুলু দাসের মধ্যে ৮ আগস্ট বিকেলে গরুর বর্জ্য দুর্গন্ধ ছড়াবে এ নিয়ে কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে চন্দন বৈদ্য ও তার বড় ভাই পল্টন বৈদ্য বুলু দাসের উপর হামলা চালায়। এক পর্যায়ে চন্দন বৈদ্য ধারালো অস্ত্র দিয়ে বুলু দাসের মাথায় আঘাত করে। এতে বুলু দাস গুরুতর আহত হন। পরে তার স্বজনরা তাকে নিয়ে আসে নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। কর্মরত ডাক্তার রোগীকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় দেখে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল হাসপাতালে প্রেরণ করে। 

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার করগাঁও ইউনিয়ন জয়ন্তুরী গ্রামের চন্দন বৈদ্য নামে এক ব্যক্তি ৯৯৯ কল দিয়ে অভিযোগ করেন পার্শ্ববর্তী বাড়ির বুলু দাস তার বসত ঘর ভাঙচুর করে এবং পরিবারের উপর হামলা চালায়। তাৎক্ষণিকভাবে নবীগঞ্জ থানা এএসআই মুস্তাফিজুর ও একদল পুলিশ ফোর্স সরজমিনে গিয়ে জানতে পারেন ৯৯৯ কল দেওয়া ব্যক্তি ও তার ভাই বুলু দাসের উপর হামলা চালান। ঘটনা আড়াল করতে ঘর ভাঙচুরের বিষয়টি সামনে আনেন। 

এ ঘটনায় আহত বুলু দাসের বড় ভাই কানাই লাল দাস ৮ আগস্ট নবীগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

ওইদিন রাতে নবীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ ডালিম আহমাদের নেতৃত্বে এসআই অমিতাভ দাস তালুকদার ও এএসআই মুস্তাফিজুরসহ একদল পুলিশ পুলিশ পল্টন বৈদ্যকে (৩০) গ্রেফতার করে। মামলার প্রধান আসামী চন্দন বৈদ্যকে (২৫) মৌরিগ্রাম থেকে গ্রেফাতার করা হয়।

সোমবার (৯ আগস্ট) দুপুরে আসামিদের আদালতে প্রেরণ করা হয়। নবীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ডালিম আহমদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

আইনিউজ/অঞ্জন রায়/এসডিপি 

Green Tea
সর্বশেষ
জনপ্রিয়