ঢাকা, শুক্রবার   ২২ অক্টোবর ২০২১,   কার্তিক ৭ ১৪২৮

স্বাস্থ্য ডেস্ক

প্রকাশিত: ২৩:৫৩, ৩০ আগস্ট ২০২১
আপডেট: ০০:০৩, ৩১ আগস্ট ২০২১

মাথার কাছে মোবাইল রেখে ঘুমালে হতে পারে ক্যান্সার!

বর্তমান তথ্যপ্রযুক্তির যুগে আমাদের নিত্যসঙ্গী মোবাইল ফোন। কাজ থাকুক আর নাই থাকুক একটু পরপর মোবাইল দেখা একটা অভ্যাসে পরিণত হয়েছে। তাইতো মোবাইলটাকে আমরা নিজের কাছেই রাখি সব সময়। এমনকি ঘুমের সময়ও বাদ যায় না।

কিন্তু আপনি কি জানেন মোবাইল ফোন যত বেশি শরীরের কাছাকাছি থাকে স্বাস্থ্য ঝুঁকি ততই বাড়তে থাকে। গবেষণায় দেখা গেছে, মোবাইল ফোন থেকে যে রেডিয়েশন সব সময় বের হয় তা শরীরের কোষের বিকাশের বাধা সৃষ্টি করে। ফলে নানা ক্যান্সার হওয়ার আশঙ্কা বৃদ্ধি পায়।

মোবাইলে অ্যালার্ম সেট করার পর থেকে বন্ধ করার আগমুহূর্ত পর্যন্ত এটি থেকে রেডিও ট্রান্সমিশন বের হতে থাকে। তাই ঘুমাবার আগে মাথার কাছে মোবাইল রাখলে এ অদৃশ্য তরঙ্গ শরীরে ও মস্তিষ্কের ক্ষতি সাধন করে।

গবেষকরা লক্ষ করে দেখেছেন ঘুমনোর সময় শরীর থেকে মোবাইল ফোনটিকে যদি কম করে ৩ ফুট দুরত্বে রাখা যায়, তাহলে ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা অনেকটাই কমে।

তাই ঘুমানোর সময় মোবাইল বন্ধ করে অন্য যে ঘরে মানুষ থাকে না সেখানে রাখতে হবে অথবা মোবাইল ফোন শরীর থেকে ৩ ফুট দূরত্বে রাখতে হবে।

ফোনের ক্ষতিকারক প্রভাব থেকে বাঁচতে করণীয় 

১. ফোনে কথা বলা কমান। দীর্ঘ ফোন কল এড়ানোর চেষ্টা করুন। আর যদি একান্ত এমনটা সম্ভব না হয়, তাহলে কয়েক মিনিট পর পর এক কান থেকে অন্য কানে ফোনটা নেবেন। এক ভাবে, এক কানে দিয়ে ফোনে কথা বলবেন না।

২. সম্ভব হলে ফোনে কথা বলার সময় হেড ফোন ব্যবহার করুন। এমনটা করলে ফোনের রেডিয়েশনের প্রভাবে মস্তিষ্কের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা কমে।

৩. সিগনাল যেখানে ভালভাবে আসছে না। সেখানে ভুলেও ফোন কল রিসিভ করবেন না। এমনটা করলে মারাত্মক ক্ষতি হয়। কারণ সিগনাল দুর্বল থাকার সময় ফোন থেকে বেরুনো রেডিও ওয়েভের মাত্রা বেড়ে যায়। ফলে ব্রেনের উপর খুব খারাপ প্রভাব পড়ে।

৪. প্যান্টের পকেটে অথবা বুক পকেটে ভুলেও ফোন রাখবেন না। এতে শরীরের একাধিক অঙ্গের মারাত্মক ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা বেড়ে যায়।

আইনিউজ/এসডিপি 

Green Tea
সর্বশেষ
জনপ্রিয়