ঢাকা, মঙ্গলবার   ১৭ মে ২০২২,   জ্যৈষ্ঠ ৩ ১৪২৯

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ২৩:১৩, ১৩ মে ২০২২

সেচের পানি না পেয়েই আত্মহত্যা করেছিলেন দুই কৃষক : পুলিশ

চাষি অভিনাথ মারান্ডি ও রবি মারান্ডি

চাষি অভিনাথ মারান্ডি ও রবি মারান্ডি

চোলাই মদ খাওয়ার কারণে নয়, একই রকমের বিষপানে আত্মহত্যা করেন রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার দুই সাঁওতাল কৃষক। চাকরীচ্যুত বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিএমডিএ) গভীর নলকূপ অপারেটর সাখাওয়াত হোসেন কাছের লোকদের আগে পানি দিয়ে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর চাষিদের হয়রানি করার কারণেই তারা বিষপান করে আত্মহত্যা করেন।

ওই দুই কৃষকের মৃত্যুর ঘটনায় তাদের পরিবারের পক্ষ থেকে যে আত্মহত্যার প্ররোচনার মামলা দায়ের করা হয়েছিল, সেই মামলার অভিযোগপত্রে পুলিশ এ কথা জানিয়েছে। ইতোমধ্যে অভিযোগপত্র আদালতে দাখিল করা হয়েছে। আদালতও সেই অভিযোগপত্র গ্রহণ করেছে।

অভিযোগপত্রে বলা হয়, ধানের জমি ফেটে চৌচির হলেও বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিএমডিএ) গভীর নলকূপ অপারেটর সাখাওয়াত হোসেনে দুই কৃষককে পানি দেননি। তিনি কাছের লোকদের আগে পানি দিতেন। ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর চাষিদের পানির জন্য ঘোরাতেন। আর তাই সাঁওতাল সম্প্রদায়ের চাষি অভিনাথ মারান্ডি ও রবি মারান্ডি বিষপান করে আত্মহত্যা করেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা গোদাগাড়ী থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মাহাফুজুর রহমান ঢাকা ট্রিবিউনকে জানান, গত মাসের শেষের দিকে অভিনাথের মৃত্যুর ঘটনার মামলাটির অভিযোগপত্র জমা দেওয়া হয়। এরপর এ মাসের শুরুতে রবির মামলাটিরও অভিযোগপত্র দেওয়া হয়।

তিনি জানান, অপারেটর সাখাওয়াত পানি নিয়ে কৃষকদের হয়রানি করতেন। স্বজনপ্রীতি করে কাছের লোকদের আগে পানি দিতেন। অভিনাথ ও রবি পানি না পাওয়ার কারণে আত্মহত্যা করেন বলে এজাহারে উল্লেখ করা হয়। তদন্তেও এটি প্রমাণিত হয়েছে। তাই অভিযোগপত্রও সেভাবে করা হয়েছে।

রাজশাহী জেলা পুলিশের আদালত পরিদর্শক আবদুর রফিক জানান, কয়েকদিনের ব্যবধানে গোদাগাড়ী থানা থেকে অভিযোগপত্র দুটি প্রথমে তার দপ্তরে পাঠানো হয়েছিল। তিনি অভিযোগপত্র দুটি আদালতে দাখিল করেছেন। আদালত তা গ্রহণ করেছেন।

প্রসঙ্গত, গত ২৩ মার্চ গোদাগাড়ীর নিমঘুটু গ্রামের সাঁওতাল কৃষক অভিনাথ মারান্ডি ও তার চাচাতো ভাই রবি মারান্ডি বিষপান করেন। ওইদিনই অভিনাথের মৃত্যু হয়। পরে ২৫ মার্চ মারা যান রবি।

পরিবারের দাবি, দুই কৃষককে বোরো ধানের জমিতে সেচের পানি দিচ্ছিলেন না বিএমডিএ-এর গভীর নলকূপ অপারেটর সাখাওয়াত হোসেন। ওয়ার্ড কৃষক লীগের সভাপতি সাখাওয়াত পানি না দিয়ে তাদের বিষ খেতে বলেছিলেন। এ কারণে তারা বিষপান করেন।

এ নিয়ে পরিবারের পক্ষ থেকে সাখাওয়াতের বিরুদ্ধে দুটি আত্মহত্যার প্ররোচনার মামলা করা হয়। কিন্তু বিভিন্ন মহল থেকে দুই কৃষক চোলাই মদ পান করে মারা গেছেন বলে প্রথম দিকে চালিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছিল। তবে তাদের মরদেহের ময়নাতদন্তের প্রতিবেদনে বলা হয়, দুজনে একই ধরনের বিষপান করে মারা গেছেন। এরপর পুলিশ আদালতে মামলা দুটির অভিযোগপত্র দাখিল করেছে।

মামলা হলে ঘটনার ১১ দিন পর পুলিশ সাখাওয়াতকে গ্রেপ্তার করে। সেদিনই বিএমডিএ সাখাওয়াতের নিয়োগ বাতিল করে। তিনি এখন কারাগারে। অভিযোগপত্রে পুলিশ শুধু সাখাওয়াত হোসেনকেই অভিযুক্ত করেছে।

সূত্রঃ ঢাকা ট্রিবিউন

আইনিউজ/এসডি

দেখুন আইনিউজ ভিডিও

জাফলংয়ে পর্যটকদের ওপর হামলায় ৫ জন কারাগারে

জাফলংয়ে পর্যটক পেটানো সেই স্বেচ্ছাসেবকদের বিরুদ্ধে যেসব ব্যবস্থা নেওয়া হবে জানালেন এসপি

সিলেট বিভাগের সবচেয়ে বড় এ ঈদগাহে নামাজ পড়বে ১৬ হাজার মানুষ

শহরে বেদে নারীদের চাঁদাবাজি, তাদের লক্ষ্য নিরীহ পথচারী ও যাত্রী

Green Tea
সারাবাংলা বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
সর্বশেষ
জনপ্রিয়