ঢাকা, বুধবার   ০২ ডিসেম্বর ২০২০,   অগ্রাহায়ণ ১৭ ১৪২৭

বিনোদন প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ০২:২৭, ১১ জুন ২০২০
আপডেট: ০২:৩১, ১১ জুন ২০২০

সমরজিৎ রায়ের ‘মেঘবালিকা’ গানে প্রথমদিনেই বাজিমাত, দর্শকমুগ্ধতা

এবারের ঈদ উপলক্ষে জনপ্রিয় সঙ্গীত শিল্পী সমরজিৎ রায়ের গাওয়া "শহরতলী চুপ" গানটির পরে বুধবার (১০ জুন) প্রকাশিত হলো "মেঘবালিকা" গানটি।

প্রথমদিনেই বাজিমাত করে গানটি। এদিন বাংলা ভাষার জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল আই নিউজ লাইভে এসে "মেঘবালিকা" গানটি করেন সমরজিৎ রায়। মুগ্ধতায় ছুঁয়ে যায় লাইভে যুক্ত থাকা হাজারো দর্শকমন। গানের প্রশংসায় অসংখ্য কমেন্ট আসতে শুরু করে। 

এই লিংকে ক্লিক করে রেকর্ডেড লাইভ অনুষ্ঠানটি দেখতে পারবেন।  

‘মেঘবালিকা’- গানের শিল্পী, সুর ও সঙ্গীতায়োজন: সমরজিৎ রায়। কথা: স্বীকৃতি প্রসাদ বড়ুয়া। প্রোগ্রামিং: রণদীপ মানু। মিক্সিং ও মাস্টারিং: জে কে মজলিশ। প্রকাশনা: জি সিরিজ।

এই লিংকে ‘মেঘবালিকা’ গান শোনা যাবে

মোবাইলের ওয়েলকাম ট্যুনে গানটি সেট করতে পারেন- Grameenphone Welcome Tune: WT 9660239 send to 24000, BanglaLink Amar Tune: down9660239 send to 2222, Robi GoonGoon: Get 9660239 send to 8466

সমরজিৎ রায় বলেন- এবারের দুটো গানই আমি আমার ধারা থেকে বেরিয়ে করার চেষ্টা করেছি। গানটা শুনে দর্শকদের মতামত জানার আগ্রহ রইলো। 

এদিকে আই নিউজ লাইভে জনপ্রিয় সঙ্গীত শিল্পী সমরজিৎ রায়ের গানে ছিলো দর্শকমুগ্ধতা। বুধবার (১১ জুন) রাত ৮ টা থেকে প্রায় দুই ঘন্টা আই নিউজের ফেসবুক পেজে সরাসরি অনুষ্ঠানটি সম্প্রচারিত হয়।

জনপ্রিয় এ সঙ্গীত শিল্পী ও সঙ্গীত শিক্ষক শুরু করেছিলেন ‘মেঘ বালিকা’ গান দিয়ে। শেষ করেন মান্না দে এর ‘কফি হাইজের সেই আড্ডা’ গানটি দিয়ে। গান-গল্প-আড্ডায় পুরো সময়টা জুড়ে দর্শকেদর মন্ত্রমুগ্ধতায় বুদ করে রাখেন গুণী এ শিল্পী।

আর আরেক জনপ্রিয় সঙ্গীত শিল্পী উপস্থাপিকা পুনম ঘোষের গোছানো-প্রাণবন্ত সঞ্চালনা অনুষ্ঠানের মাত্রা বাড়িয়ে দেয়।

কয়েক হাজার দর্শক লাইভে যুক্ত হন। গানের অনুরোধ করে শতশত কমেন্ট আসতে শুরু করে।

আই নিউজ লাইভ আড্ডায়- বিনোদন, স্বাস্থ্য এবং সমসাময়িক অনুষ্ঠান নিয়মিত সম্প্রচার হয়ে আসছে। এরইমধ্যে বেশ দর্শকপ্রিয়তা পেয়েছে- আই নিউজ লাইভ আড্ডা।  

জনপ্রিয়-সঙ্গীতশিল্পী সমরজিৎ রায়

সমরজিৎ রায় বাংলাদেশের সঙ্গীত জগতের এই সময়ের অন্যতম জনপ্রিয় ও গুণী সঙ্গীতশিল্পী সমরজিৎ রায়।

কলেজজীবনে সমরজিৎ ছিলেন বাংলা গানের পাগল। মান্না দের গান দারুণ খেলত গলায়। হারানো দিনের গান গেয়েও ঝড় তুলতেন শ্রোতাদের হৃদয়ে। সিনেমা বলতেও ওই উত্তম-সুচিত্রা পর্যন্তই। হিন্দির কাছেপিঠেও ঘেঁষা নয়। বন্ধুরা গায়ে তকমা লাগিয়েছিল ‘সেকেলে’। কিন্তু সবকিছু পাল্টে দিল একটি শিক্ষাবৃত্তি। সংগীতে উচ্চতর ডিগ্রি অর্জনের জন্য গেলেন ভারতের দিল্লির গন্ধর্ব মহাবিদ্যালয়ে। সেই শুরু।

জন্ম কক্সবাজারে

বাংলদেশের কক্সবাজারে জন্ম নেওয়া শিল্পী সমরজিতের বাবা নেপাল চন্দ্র রায় একজন স্বনামধন্য গুণী শিক্ষক এবং মা রত্না রায় গৃহিণী। সমরজিৎ এর সঙ্গীত জীবনের প্রথম গুরু হলেন চট্টগ্রাম আর্য্য সঙ্গীতের উপাধ্যক্ষ পন্ডিত নির্মলেন্দু চৌধুরী। এরপরে তিনি সঙ্গীত শিক্ষা লাভ করেন ভারতের প্রখ্যাত সঙ্গীতজ্ঞ পদ্মশ্রী পন্ডিত মধুপ মুদ্গল এবং পদ্মভূষণ পন্ডিত অজয় চক্রবর্তী সহ আরো অনেকের কাছে।

ভারত সরকারের বৃত্তি নিয়ে সঙ্গীতে উচ্চতর ডিগ্রী

ভারত সরকারের বৃত্তি নিয়ে দিল্লীর গান্ধর্ব মহাবিদ্যালয় থেকে সঙ্গীতে উচ্চতর ডিগ্রী নেন সমরজিৎ। সঙ্গীত বিশারদের চূড়ান্ত পরীক্ষায় সারা ভারতবর্ষে প্রথম স্থান অধিকার করে তিনি অর্জন করেন বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ এওয়ার্ড, যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো পন্ডিত ডি.বি পলুস্কর এওয়ার্ড, হরি ওম ট্রাস্ট এওয়ার্ড, সঙ্গীতা বসন্ত বেন্দ্রে এওয়ার্ড,বাসুদেব চিন্তামন এওয়ার্ড,নলিনী প্রতাপ কানবিন্দে এওয়ার্ড, সুশীলা এওয়ার্ড, সুখবর্ষা রায় এওয়ার্ড ইত্যাদি।

তাছাড়া তিনি ভারতের চন্ডীগড়ের প্রাচীন কলাকেন্দ্র থেকেও তবলা এবং উচ্চাঙ্গ সঙ্গীতের উপর 'সঙ্গীত বিশারদ' ডিগ্রী নেন।

গুণী সঙ্গীতজ্ঞদের সান্নিধ্য

শিল্পী সমরজিৎ যে সমস্ত গুণী সঙ্গীতজ্ঞদের সঙ্গে কাজ করার সুযোগ পেয়েছেন এবং একান্ত সান্নিধ্য পেয়েছেন তাঁদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলেন মান্না দে, মৃণাল চক্রবর্তী,অনুপ জলোটা,পন্ডিত যশরাজ,পন্ডিত শিবকুমার শর্মা,পন্ডিত হরিপ্রসাদ চৌরাশিয়া,ওস্তাদ জাকির হোসেন, জগজিৎ সিং, কবিতা কৃষ্ণমূর্তি, নির্মলা মিশ্র, হৈমন্তী শুক্লা,অজয় দাস, বটকৃষ্ণ দে, শ্রাবন্তী মজুমদার প্রমুখ।

সমরজিতের যত কীর্তিগাঁথা

ভারতের দূরদর্শন চ্যানেলে নিয়মিতভাবে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশ নেন তিনি। সমরজিৎ 'ডিডি ভারতী' চ্যানেলের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সঙ্গীত পরিবেশন করেছিলেন প্রখ্যাত শিল্পী কবিতা কৃষ্ণমূর্তির সঙ্গে। জার্মানী, বেলজিয়াম, ভারতসহ অনেকগুলো দেশের বিভিন্ন সাম্মানিক অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করার সুযোগ পান তিনি। ভারতে মৈথিলী ভাষার 'মুখিয়া জী" ছবিতে সমরজিৎ প্রথম প্লেব্যাক করেন। সমরজিৎ এর প্রথম হিন্দী এলবাম 'তেরা তসব্বুর' ২০১১ সালে ভারতের জিমা এওয়ার্ডে "সেরা জনপ্রিয় এলবাম" বিভাগে মনোনয়ন পায়। "অচেনা একটা দিন' শিরোনামের বাংলা এলবামে সমরজিতের সুর ও সঙ্গীত পরিচালনায় কিছু গান করেন কিংবদন্তী শিল্পী অনুপ জলোটা। রবীন্দ্রসঙ্গীতের এলবাম "রবি রঞ্জনী" এবং হিন্দী গানের এলবাম "প্রতিধ্বনি" ও "ফিকর" এর মোড়ক উন্মোচন করেন যথাক্রমে প্রখ্যাত অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, প্রখ্যাত শিল্পী অনুপ জলোটা এবং ঊষা উত্থুপ প্রমুখ।

ভিন্ন এলবামে সমরজিতের সঙ্গে দ্বৈত কন্ঠে গান করেন বলিউডের শিল্পী অন্বেষা দত্তগুপ্ত, রূপরেখা ব্যানার্জী, সঞ্চিতা সহ অনেকেই। বাংলা গানের কিংবদন্তী গীতিকার প্রয়াত পুলক বন্দোপাধ্যায়ের লেখা এবং কিংবদন্তী সুরকার অজয় দাসের সুরে ৪ টি গান সমরজিৎ মৌলিক গান হিসেবে পেয়েছেন, এটা নিঃসন্দেহে তাঁর সঙ্গীত জীবনের অনেক বড়ো পাওয়া।

সমরজিৎ এর কথা,সুর ও সঙ্গীত পরিচালনায় কিংবদন্তী শিল্পী হৈমন্তী শুক্লার সঙ্গে গাওয়া দ্বৈত কন্ঠের গান "তুমি ভোরের পাখির মতো" ভীষণ শ্রোতাপ্রিয় হয়। বাংলা ও হিন্দীতে সমরজিতের প্রকাশিত এলবামগুলো হলো "তেরা তসব্বুর"/ "অচেনা একটা দিন"/ "রবি রঞ্জনী"/ "এক চিলতে রোদ"/ "প্রতিধ্বনি"/ "ফিকর"/ "গোধূলিবেলা"। সেই সঙ্গে বিভিন্ন সময়ে প্রকাশ পেয়েছে অসংখ্য একক গান।

মহাত্মা গান্ধী, ইন্দিরা গান্ধী, রাজীব গান্ধী, চরণ সিং সহ ভারতের ভূতপূর্ব অনেক প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতিদের জন্ম ও মৃত্যুবার্ষিকীতে সরকারিভাবে অনুষ্ঠিত বিভিন্ন অনুষ্ঠানে নিয়মিতভাবে অংশ নিতেন সমরজিৎ, যেসব অনুষ্ঠানে ভারতের বিভিন্ন সময়ের প্রধানমন্ত্রী, রাষ্ট্রপতি সহ অনেক গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিগণ উপস্থিত থাকতেন।

তাছাড়া ভারতের ভূতপূর্ব রাষ্ট্রপতি প্রয়াত আব্দুল কালামের আমন্ত্রণে তিনবার রাষ্ট্রপতি ভবনে সঙ্গীত আসরে অংশগ্রহণ এবং তাঁর সঙ্গে মধ্যাহ্নভোজে অংশ নেওয়ার সৌভাগ্য হয়েছে সমরজিতের। সমরজিৎ দীর্ঘ সময় দিল্লীর গান্ধর্ব মহাবিদ্যালয়ে উচ্চাঙ্গ সঙ্গীতের শিক্ষক হিসেবে শিক্ষকতা করেন।

বাংলাদেশে "আরটিভি স্টার এওয়ার্ড ২০১৫" এর সম্মান পান তিনি।

এইচকে/ আই নিউজ

Green Tea
সর্বশেষ
জনপ্রিয়