ঢাকা, শনিবার   ১৬ অক্টোবর ২০২১,   কার্তিক ১ ১৪২৮

প্রনীত রঞ্জন দেবনাথ

প্রকাশিত: ১২:০৯, ২৬ জুলাই ২০২১
আপডেট: ১২:৪৫, ২৬ জুলাই ২০২১

গ্রীষ্মকালীন হাইব্রিড হলুদ তরমুজ চাষে কমলগঞ্জের আব্দুল মতিনের বাজিমাত

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার সীমান্তবর্তী পাত্রখোলা এলাকার কৃষক আব্দুল মতিন জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উদ্যোগে এবং লাল তীরের সার্বিক সহযোগিতায় তিন জাতের হাইব্রিড তরমুজ চাষ করে অভাবনীয় সাফল্য পেয়েছেন। তার সাফল্য দেখে খোদ কৃষি বিভাগই বিষ্মিত। এলাকার অনান্য কৃষকদের মধ্যেও সাড়া জাগিয়েছেন তিনি।

আব্দুল মতিনের এ বাম্পার ফলনে কৃষি বিভাগ এই উচ্চ ফলনশীল বীজ অনান্য উপজেলায়ও বিস্তার ঘটাবে। তার চাষ করা জাতগুলো হলো ব্ল্যাকবেবি, মধুমালা ও হলুদ রঙ্গের লালতীর এর ল্যনফাই (LanFei) জাতের হলুদ তরমুজ।

শনিবার (২৪ জুলাই) বিকেলে সরেজমিনে আব্দুল মতিনের তরমুজ ক্ষেতের ফলাফল পরিদর্শনে আসেন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর মৌলভীবাজার এর উপ-পরিচালকসহ এলাকার অনান্য কৃষকগণ। 

এ সময় সফল কৃষক আব্দুল মতিন জানান, তার দুই বিঘা জমিতে এই তিনজাতের তরমুজ চাষ করেন। ইতিমধ্যেই তিনি ফল বিক্রি করা শুরু করেছেন।

তিনি জানান, তিন জাতের মধ্যে হলুদ রঙের লালতীরের হাইব্রিড, ল্যনফাই (LanFei) জাতটি সর্বাধিক ফলন হয়েছে। ফলের ওজন এবং আকারে সবাইকে আকর্ষণ করেছে। শুধু আকার নয় এর স্বাদ অসাধারণ। মধুর মতো মিষ্টি। বাজারে এরদরও ভালো পাচ্ছেন।

তিনি জানান, এই তিনজাতের তরমুজ চাষ করতে এখন পর্যন্ত তার খরচ হয়েছে ৩০ থেকে ৪০ হাজার টাকা। আর এখন পর্যন্ত বিক্রি করেছেন ১ লাখ ২০ হাজার টাকার মতো। মাঠে যে পরিমাণ ফলন রয়েছে এতে তিনি আরও দেড় থেকে দুই লাখ টাকা বিক্রি করতে পারবেন বলে আশাবাদী।

তিনি আরও জানান, ল্যানফাই জাতটির ফলন অন্যান্যদের চেয়ে প্রায় তিনগুণ বেশি এবং ফলের ওজন এক একটি ৩ থেকে ৪কেজি এবং ফলে মিষ্টির পরিমাণও অন্যান্য জাতের চেয়ে অনেক গুণ বেশী। তাই আগামিতে তিনি ব্যাপকভাবে এই জাতের তরমুজ চাষ করবেন বলে আশা প্রকাশ করেন। ফলন দেখতে তার জমি পরিদর্শন করেন স্থানীয় আশপাশের কৃষকরা। তারাও আগামীতে বিস্তৃতভাবে এজাতের চাষ করবেন বলে আগ্রহ প্রকাশ করেন।

এই প্রদর্শনীর বীজ এর উৎস প্রতিষ্ঠান লালতীর সীড এর লিমিটেড এর বিভাগীয় ব্যবস্থাপক তাপস চক্রবর্তী জানান, হাইব্রিড, ল্যানফাই জাতটি সবুজ ডোরাকাটাও ভিতরে হলুদ রঙ্গের শাসযুক্ত, অধিক মিষ্টি। উত্তম পরিচর্যায় একেকটির তরমুজ এর ওজন হয় ৫ থেকে ৬ কেজি। সারা বছরব্যাপী মাচায় ও মাঠে চাষ করা যায়। এফলের পরিপক্বতার সময় আসে ৬৫ থেকে ৭০দিনে।

জাতটি চাষ করতে প্রতি শতকে বীজের পরিমাণ লাগে মাত্র ১ গ্রাম। উত্তম পরিচর্যাতে একরে ফলন উৎপাদন হয় ৩০ থেকে ৩৫টন। কৃষকরা উপযুক্ত দাম পেলে এই জাতগুলো চাষে দিন দিন আগ্রহ বৃদ্ধি পাবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। 

এ প্রসঙ্গে মৌলভীবাজার জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কাজী লুৎফুল বারী জানান, এ প্রদর্শনীতে তিন জাতের বীজ লাগানো  হয়েছে । এর মধ্যে অধিক ফলনও ফলের মিষ্টতার পরিমানেও সবদিক থেকে এগিয়ে কৃষকের মন জয় করেছে হাইব্রিড, ল্যানফাই জাতটি।

তিনি বলেন, জেলার অন্যান্য উপজেলাতেও এমনি কৃষকদের মাঝে এই জাতগুলোর চাষ ছড়িয়ে দিতে চান। যেন, কৃষকরা উচ্চমূল্যের ফল এবং সবজি চাষ করে অধিক লাভবান হতে পারে।

আইনিউজ/প্রনীত রঞ্জন দেবনাথ/এসডি

Green Tea
সর্বশেষ
জনপ্রিয়