ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ১৩ মে ২০২১,   বৈশাখ ৩০ ১৪২৮

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ২১:০২, ৩ মে ২০২১
আপডেট: ২১:০৪, ৩ মে ২০২১

ছয় ঘণ্টা ধরে পুড়েছে সুন্দরবন: তদন্ত কমিটি গঠন

প্রথমবার সুন্দরবনে আগুন লাগার দুই মাস মাত্র শেষ হয়েছে। এর মধ্যেই আবার সমুদ্র উপকূলবর্তী নোনা পরিবেশের সবচেয়ে বড় ম্যানগ্রোভ বন সুন্দরবন পুড়েছে ৬ ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে। 

সুন্দরবন পূর্ব বিভাগের শরণখোলা রেঞ্জের এলাকার আগুন সন্ধ্যা সাতটা পর্যন্তও পুরোপুরি নেভানো যায়নি। তবে নিয়ন্ত্রণে এনেছে ফায়ার সার্ভিস ও বনকর্মীরা। বেশকিছু এলাকায় ধোঁয়ার কুণ্ডলি দেখা যাচ্ছিল।

সোমবার (৩ এপ্রিল) দুপুরে পূর্ব বন বিভাগের বাগেরহাটের শরণখোলা রেঞ্জের দাসের ভারানি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

আগুন নেভাতে স্থানীয় লোকজন ও বনবিভাগ কাজ করেছে। আগুনের বিস্তৃতি যাতে না বাড়তে পারে সেজন্য ফায়ার লাইন (আগুনের অংশের মাটি আলাদা করা) কাটার কাজ করেছে বনবিভাগ ও স্থানীয়রা।

সুন্দরবনে লাগা আগুন কতটুকু এলাকায় ছড়িয়ে পড়েছে তা তাৎক্ষণিকভাবে বলতে পারেনি বনবিভাগ। তবে স্থানীয়রা বলছে, প্রায় দুই একর এলাকায় আগুন ছড়িয়ে পড়েছে।

আগুন লাগার খবর পেয়ে বিকালে ওই এলাকা পরিদর্শন করেছেন বনবিভাগের খুলনা অঞ্চলের বনসংরক্ষক (সিএফ) মো. মঈনুদ্দিন খান।

বনে কিভাবে আগুন লাগল তা এখনো নিশ্চিত করতে পারেনি বনবিভাগ। আগুনের ঘটনা তদন্তে সুন্দরবন পূর্ব বিভাগের শরণখোলা রেঞ্জের সহকারী বন সংরক্ষক (এসিএফ) জয়নুল আবেদিনকে আহ্বায়ক করে তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করেছে বনবিভাগ। আগামী সাত কর্ম দিবসের মধ্যে ওই কমিটিকে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

এর আগে গত ৮ ফেব্রুয়ারি সুন্দরবন পূর্ব বিভাগের চাঁদপাই রেঞ্জের ধানসাগর এলাকার চার শতক বনভূমি পুড়ে যায়। শরণখোলা রেঞ্জের দাসের ভারানি টহল ফাঁড়ির ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আব্দুল মান্নান এই প্রতিবেদককে বলেন, আগুন লাগার পর বনবিভাগ স্থানীয় গ্রামবাসীকে সঙ্গে নিয়ে কাজ শুরু করে। তারা আগুনের বিস্তৃতি রোধে ফায়ার লাইন কাটা ও পানি ছিটিয়ে আগুন নেভানোর কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। দুপুরের পরে ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট বনের আগুন নেভানোর কাজে যোগ দেয়। পানির উৎস দূরে হওয়ায় আগুন নেভানোর কাজ ব্যাহত হচ্ছে।

আইনিউজ/এসডি

Green Tea
সর্বশেষ
জনপ্রিয়