ঢাকা, শনিবার   ১৬ অক্টোবর ২০২১,   কার্তিক ১ ১৪২৮

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ২১:৪৭, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১
আপডেট: ২২:৫৭, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১

দেশের একমাত্র নীলগাই পরিবারে এসেছে নতুন দুই অতিথি

বিরল প্রাণী নীলগাই। এদের সংরক্ষণের উদ্দেশ্যে ভিন্ন দুই জেলা থেকে বন বিভাগ উদ্ধার করেছিলো দুটি নীলগাই। তারপর তাদের ঠিকানা হয় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কে। এবার নীলগাই পরিবারে এসেছে নতুন সদস্য। এক জোড়া নীলগাই শাবক এখন বড় দুই নীলগাইয়ের পাশে মনের আনন্দে ঘুরে বেড়াচ্ছে।

শুক্রবার (১৭ সেপ্টেম্বর) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে খবরটি জানায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্ক। তবে নতুন একজোড়া অতিথির জন্ম আজ হয়নি, গত ১ আগস্ট নীলগাইয়ের শাবক দুটি জন্ম নেয়। তখন তাদের নিরাপত্তার কথা ভেবে খবরটি প্রকাশ করেনি কর্তৃপক্ষ।

গাজীপুরের শ্রীপুরে অবস্থিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্ক জানাচ্ছে, নীলগাইয়ের শাবক দুটি এখন সুস্থ আছে। ভালো আছে সেগুলোর মা–বাবাও।

সাফারি পার্ক কর্তৃপক্ষ তাদের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করে, ১৯৪০ সালে শেষবার পঞ্চগড়ে একটি নীলগাই দেখা গেছে। এরপর ৮০ বছরের বেশি সময় এ দেশের প্রকৃতিতে আর কোথাও প্রাণীটিকে দেখা যায়নি। এটিকে বাংলাদেশের প্রকৃতিতে বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়। গত বছরের ২১ ফেব্রুয়ারি চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার মনাকষা ইউনিয়ন থেকে স্ত্রী নীলগাইটিকে উদ্ধার করা হয়। পুরুষ নীলগাইটি উদ্ধার হয়েছে তার আগের বছর (২০১৯) নওগাঁ জেলার মান্দা উপজেলার জোতবাজার গ্রাম থেকে। দুটি জায়গাতেই স্থানীয় ব্যক্তিদের হাতে ধরা পড়ার পর নীলগাই দুটিকে জবাই করার চেষ্টা হয়েছে। তবে শেষ পর্যন্ত বন বিভাগের তৎপরতায় সেগুলোকে জীবিত উদ্ধার করা সম্ভব হয়।

সরেজমিনে সাফারি পার্কের কোর সাফারিতে দেখা গেছে, বনের ভেতর শাবকগুলো নিয়ে নির্জনে অবস্থান করছে নীলগাই জুটি। লোকজনের একটু দৃষ্টি পড়লেই খুব দ্রুত শাবক দুটিকে নিয়ে স্থান পরিবর্তন করে আড়াল হয়ে যায় সেগুলো।

বাচ্চা দুই নীলগাইয়ের জন্য নিরাপত্তা নিশ্চিতের ব্যবস্থাটিও বেশ ভালো করেছে বড় নীলগাই দুটি। প্রথমে বাবা নীলগাইটি নতুন সম্ভাব্য নিরাপদ স্থানটিতে একবার ঘুরে আসে। এরপর স্ত্রী নীলগাই সামনে থেকে শাবক দুটিকে নিরাপত্তা দিয়ে নিয়ে যায়। অন্যদিকে পেছনে পেছনে হাঁটে বাবা নীলগাই। নতুন শাবক দুটির গায়ের রং বাদামি।

একসময় বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলায় এই প্রাণীগুলোর দেখা পাওয়া যেত হরহামেশা। এখন এই দেশে নীলগাইয়ের দেখা না পাওয়া গেলেও পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে প্রায় এক লাখ নীলগাই আছে। পুরুষ নীলগাইয়ের রং গাঢ় ধূসর। অনেকটা কালচে রঙের।

শরীরে অনেক সময় নীলচে আভা দেখা যায় বলেই এগুলোর নামকরণ করা হয়েছে নীলগাই। স্ত্রী নীলগাইয়ের রং লালচে বাদামি হয়। নীলগাইয়ের গড় আয়ু সাধারণত ২১ বছর।

বন বিভাগের বন সংরক্ষক জাহিদুল কবির জুয়েল নতুন শাবক দুটির বিষয়ে আইনিউজকে বলেন, বাচ্চা দুটি ভালো এবং সুস্থ আছে। প্রায় দেড় মাস আগে বাচ্চা দুটির জন্ম হলেও নিরাপত্তাজনিত কারণে সংবাদটি প্রকাশ করা হয়নি। এখন বাচ্চা দুটি নিরাপদে আছে।

তিনি জানান, নীলগাই একসময় প্রকৃতিতে প্রচুর থাকলেও প্রায় ৫০/৬০ বছর আগে দেশ থেকে বিলুপ্ত হয়ে যায়। ভারতের পশ্চিমবঙ্গেও খুব একটা দেখা যায় না। তবে ভারতীয় সীমানা প্রাচীর অতিক্রম করে গত দু'বছরে ৪/৫ টি নীলগাই এদেশে প্রবেশ করতে দেখা যায়। এদের মধ্যে দুটিকে সাফারি পার্কে আনা হয়েছিল। আনার প্রায় ১ বছর ১০ দিন পর শাবকের জন্ম দেয়।

আইনিউজ/এসডি

Green Tea
সর্বশেষ
জনপ্রিয়