ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ০৭ জুলাই ২০২২,   আষাঢ় ২৩ ১৪২৯

সাজু মারছিয়াং

প্রকাশিত: ২৩:২৬, ১৪ জুন ২০২২

কুকুরের তাড়া খেয়ে ঘরে ঢুকে পড়া বিপন্ন লজ্জাবতী বানর উদ্ধার

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার চাম্পারায় চা–বাগানে সোমবার রাতে কুকুরের তাড়া খেয়ে সুজন মুণ্ডা নামের এক ব্যক্তির ঘরে ঢুকে পড়েছিল একটি লজ্জাবতী বানর। পরে মঙ্গলবার (১৪জুন) দুপুরে প্রাণীটিকে উদ্ধার করেছেন বন বিভাগ ও স্ট্যান্ড ফর আওয়ার এনডেনজারড ওয়াইল্ডলাইফের (SEW) সদস্যরা। 

কমলগঞ্জের সীমান্তবর্তী  চাম্পারায় চা বাগান চা শ্রমিকের সুজন মুণ্ডার বসত ঘর থেকে দুপুরে লজ্জাবতী বানরটিকে উদ্ধার করেন বন্যপ্রাণী ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগ ও স্ট্যান্ড ফর আওয়ার এনডেনজারড ওয়াইল্ডলাইফের সদস্যরা। 

স্ট্যান্ড ফর আওয়ার এনডেনজারড ওয়াইল্ডলাইফের সমন্বয়ক সোহেল শ্যাম  বলেন, ‘গতকাল সোমবার রাতে সংগঠনের সদস্যদের মাধ্যমে জানতে পারি, চাম্পারায় চা–বাগানে সুজন মুণ্ডার ঘরে কুকুরের তাড়া খেয়ে একটি প্রাণী ঢুকে পড়েছে। স্থানীয় লোকজন প্রাণীটিকে চিনতে পারেননি। পরে তাঁদের মুঠোফোনে কল করে প্রাণীটিকে আঘাত না করার জন্য বলি।’ আজ দুপুরে আমরা লজ্জাবতী বানরটিকে উদ্ধার করি।  বানরটি বর্তমানে লাউয়াছড়ার শ্যামলী বন্যপ্রাণী রেসকিউ সেন্টারে রয়েছে। 

প্রাণীটি লজ্জাবতী বানর বলে জানিয়েছেন তিনি। সোহেল শ্যাম বলেন, এরা বনের উঁচু গাছে থাকে। পথ ভুল করে এবং বাড়িতে ফলগাছ থাকায় হয়তো বানরটি নিচে নেমে এসেছিল। পরে বাড়ির কুকুরের ধাওয়া খেয়ে ঘরে ঢুকে যায়। বানরটি মানুষের সংস্পর্শে এসে একটু ভীত হয়ে আছে। আগামি কয়েকদিনের মধ্যে বন বিভাগের সাথে আলোচনা করে খুব শিগগিরই এটিকে অবমুক্ত করা হবে। বর্তমানে লাউয়াছড়ার জানকিছড়া রেসকিউ সেন্টারে প্রানীটিকে রাখা হয়েছে। 

জানা গেছে, লজ্জাবতী বানর লাজুক বানর হিসেবেও পরিচিত। এদের বেঙ্গল স্লো লরিস হিসেবেও ডাকা হয়। আন্তর্জাতিক প্রকৃতি ও প্রাকৃতিক সম্পদ সংরক্ষণ সংঘের (আইইউসিএন) লাল তালিকার নয়টি ভাগের মধ্যে লজ্জাবতী বানরকে ‘বিপন্ন’ (endangered) প্রাণী হিসেবে তালিকাভুক্ত করা হয়েছে।

আইনিউজ/সাজু মারছিয়াং/এসডিপি 

লাউয়াছড়ায় ঘণ্টায় ২০ কিলোমিটার গতিসীমা

কৃষক ও ফিঙে পাখির বন্ধুত্ব (ভিডিও)

পোষ মানাতে হাতির বাচ্চাকে নির্মম প্রশিক্ষণ 

Green Tea
সর্বশেষ
জনপ্রিয়