ঢাকা, সোমবার   ৩০ নভেম্বর ২০২০,   অগ্রাহায়ণ ১৫ ১৪২৭

তাপস দাশ

প্রকাশিত: ০২:০৮, ১৫ নভেম্বর ২০২০
আপডেট: ০০:৩০, ১৬ নভেম্বর ২০২০

ধূমপান কেড়ে নিয়েছে বাবার প্রাণ

বাবার ধূমপানের অভ্যাসটা না থাকলে হয়তো আরো কয়েকটা বছর বেঁচে থাকতেন। কত করে, কতভাবে বাবাকে বুঝিয়েছি, বকা দিয়েছি এই বলে যে 'বাবু' সিগারেট টা ছেড়ে দাও। কিন্তু বাবা কারো কথা শুনেনি। 

আমি বাবাকে হারিয়েছি, কিন্তু আর কোনো সন্তান তার বাবাকে হারাক এটা চাই না। আইসিইউতে যত রোগী ভর্তি ছিলো, তাদের মাঝে ৭০% রুগী ধূমপানের ফলে ফুসফুসের সাপোর্ট না পেয়ে মারা গিয়েছে।

৭১ বছর বয়সেও আমার বাবা বাইসাইকেল চালিয়ে যেয়ে চেম্বারে বসতেন, এখানে সেখানে সবখানে যাতায়াতে বাইসাইকেলই ছিলো উনার নিত্যদিনের সঙ্গী। শারিরীক ফিটনেস অনেক ভালো, মানসিকভাবে অনেক শক্ত একজন মানুষ। একদমই সহজ সরল ও উদার মনের মানুষ আমার বাবা। দুনিয়াদারি বুঝতেন না মোটেও।

বাবার একটা দোষ ছিলো, তিনি গত ৫০ বছর যাবত ধূমপান করতেন। আর এটাই আজ বাবার প্রাণ কেড়ে নিয়েছে। ফুসফুসের ইনফেকশন থাকার ফলে তিনি কোনো ভারী কাজ করতে পারতেন না। ধূমপানও ৫ বছর আগে ছেড়ে দিয়েছিলেন। কিন্তু ফুসফুসের যা ক্ষতি হওয়ার তো হয়েই গেছে!

সেপ্টেম্বর মাসের ২৭ তারিখে হঠাৎ করে অসুস্থ হয়ে পড়েন। প্রেসার অনেক বেশি থাকার ফলে একটা মিনি স্ট্রোক হয়। এরপর থেকে ধীরে ধীরে অনেক দুর্বল হয়ে পড়েন। একদমই খাওয়াদাওয়া কমে গিয়েছিল। এরপর ঢাকায় নিয়ে বেশকিছু টেস্ট ও কয়েকজন ভালো ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে ব্রেইন অপারেশনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় (এছাড়া আর কোনো বিকল্প ছিলো না)।

অক্টোবর মাসের ১৫ তারিখে অপারেশন করার পর বাবাকে আইসিইউতে ভর্তি করতে হয়। ২৬ টি দিন আইসিইউ ট্রিটমেন্ট করিয়েও বাবাকে আর মায়ের কাছে ফিরিয়ে আনতে পারলাম না। গত ১১ নভেম্বর রাত ১০.৪৬ মিনিটে বাবা না ফেরার দেশে চলে যান। বাবার ফুসফুসের ইনফেকশন এতো বেশি ছিলো যে ডাক্তাররাও অনেক অবাক হয়ে গিয়েছিল।

বাবা বলে আর কখনো ডাকতে পারবো না!! ডাকলেও আর বাবা কোনো উত্তর দিবেন না!! খুব বেশি কষ্ট হচ্ছে, বুকের ভিতর ভীষণ যন্ত্রণা!! তুমি যেখানেই থাকো, ভালো থেকো বাবা!!

বাবার ধূমপানের অভ্যাসটা না থাকলে হয়তো আরো কয়েকটা বছর বেঁচে থাকতেন। ভালো থাকতেন। আমাদের পাশে থাকতেন। কত করে, কতভাবে বাবাকে বুঝিয়েছি, বকা দিয়েছি এই বলে যে 'বাবু' সিগারেট টা ছেড়ে দাও। কিন্তু বাবা কারো কথা শুনেনি।

আমি বাবাকে হারিয়েছি, কিন্তু আর কোনো সন্তান তার বাবাকে হারাক এটা চাই না। আইসিইউতে যত রোগী ভর্তি ছিলো, তাদের মাঝে ৭০% রুগী ধূমপানের ফলে ফুসফুসের সাপোর্ট না পেয়ে মারা গিয়েছে। নিজের স্ত্রী-সন্তানদের দিকে তাকিয়ে ধূমপান পরিহার করার জন্য সকল বাবা-চাচাদের প্রতি বিনীত অনুরোধ রইলো। মাথার উপর থেকে ছাতাটা সরে গেলে পৃথিবীটা অন্ধকার মনে হয়।

খুব মিস করছি বাবু তোমাকে!!

তাপস দাশ, সমাজকর্মী, শ্রীমঙ্গল

আইনিউজ/এইচকে

Green Tea
সর্বশেষ
জনপ্রিয়