ঢাকা, শনিবার   ২৪ অক্টোবর ২০২০,   কার্তিক ৯ ১৪২৭

লালমনিরহাট প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ১৪:১৫, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০
আপডেট: ১৪:১৮, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০

স্ত্রীর স্বপ্ন পূরণে হাতি কিনলেন স্বামী

লালমনিরহাট সদর উপজেলার রথিধর দেউতি গ্রামের কৃষক দুলাল চন্দ্র রায়ের স্ত্রী তুলসী রানি দাসী এক বছর আগে ‘স্বপ্নে দৈব নির্দেশ পান’ হাতি কিনে যত্ন নেয়ার। স্ত্রীর সেই স্বপ্ন পূরণ করতে দুই বিঘা জমি বিক্রি করে হাতি কিনেছেন দুলাল।

তিনি গত সপ্তাহে মৌলভীবাজার থেকে সাড়ে ১৬ লাখ টাকায় কেনা হাতি নিয়ে ২০ হাজার টাকায় ভাড়া করা ট্রাকে করে বাড়ি ফেরেন। সেই সাথে প্রাণীটির দেখাশুনা করতে এক মাহুতকে প্রতি মাসে ১৫ হাজার টাকা বেতনে মৌলভীবাজার থেকে নিয়ে এসেছেন।

এর আগে তুলসী রানি একইভাবে দৈব নির্দেশ পালনে স্বামীকে দিয়ে ঘোড়া, রাজহাঁস ও ছাগল ক্রয় করিয়েছিলেন।

তুলসী রানী দাসী বলেন, দেবতা মহাদেব ও বিশ্বকর্ম্মা স্বপ্নে নির্দেশ করেছেন হাতি কিনে তার যত্ন-আত্তি নিতে। তাই স্বামীর কাছে হাতি কেনার বায়না ধরায় স্বামী সাড়ে ১৬ লাখ টাকায় হাতি কেনেন। দেবতা যতদিন হাতিটিকে রাখতে বলবেন ততদিন হাতি তাদের বাড়িতে থাকবে।

হাতির মালিক দুলাল চন্দ্র রায়ের সঙ্গে কথা হলে তিনি বলেন, এর আগেও পরম ঈশ্বরের নির্দেশে ঘোড়া, ছাগল ও রাজহাঁস কিনতে বলায় সেটিও কিনে দিয়েছি। পরম ঈশ্বর আর স্ত্রীকে খুশি করতেই হাতিটি কেনা হয়েছে বলে দাবি করেছেন দুলাল চন্দ্র রায়।

হাতি কেনার খবরে এলাকার লোকজনসহ দূর-দূরান্ত থেকে মানুষজন ছুটে আসছেন দুলাল-তুলসী রানীর বাড়িতে। সেই হাতিটিকে নিয়ে সাধারণ মানুষের কৌতূহলের যেন শেষ নেই। হাতিটির খাবার হিসেবে রাস্তার ধারে থাকা কলাগাছ কেটে খাওয়ানো হচ্ছে।

এছাড়াও প্রতিদিন ৩ কেজি ভুসি, ২ কেজি গুড় ও ২ কাঁদি কলা খাওয়ানো হচ্ছে হাতিকে।

হাতির মাহুত ইব্রাহীম মিয়া জানান, থাকা ও খাওয়ার ব্যবস্থা মালিকের করার পাশাপাশি প্রতি মাসে ১৫ হাজার টাকা মজুরিতে তিনি নিয়োগ পেয়েছেন। তিনি মাহুত বানাতে স্থানীয় দুজনকে প্রশিক্ষণ দিচ্ছেন। তারা প্রশিক্ষিত হলে তাদের ওপর দায়িত্ব দিয়ে তিনি চলে যাবেন।

আইনিউজ/এসডিপি

Green Tea
সারাবাংলা বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
সর্বশেষ
জনপ্রিয়