ঢাকা, সোমবার   ১৬ মে ২০২২,   জ্যৈষ্ঠ ২ ১৪২৯

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ২০:৩১, ২৮ এপ্রিল ২০২১
আপডেট: ২০:৩১, ২৮ এপ্রিল ২০২১

মুনিয়ার লাশ উদ্ধারের ঘটনায় আগাম জামিন আবেদন করেছেন আনভীর

রাজধানীর গুলশানের একটি ফ্ল্যাট থেকে মোসারাত জাহান (মুনিয়া) নামের এক তরুণীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় আগাম জামিন আবেদন করেছেন বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) সায়েম সোবহান আনভীর।

আনভীর বিদেশ চলে গেছেন এমন গুঞ্জনের মধ্যেই পাওয়া গেলো তার জামিনের আবেদন বিষয়ে তথ্য। বৃহস্পতিবার (২৯ এপ্রিল) বিচারপতি মামুনুন রহমানের নেতৃত্বাধীন হাইকোর্ট বেঞ্চে এই জামিন আবেদনটি শুনানির জন্য কার্যতালিকায় রয়েছে।

গত মঙ্গলবার (২৭ এপ্রিল) সন্ধ্যার পর গুলশানের একটি ফ্ল্যাট থেকে ২য় বর্ষের কলেজ শিক্ষার্থী মুনিয়ার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। পুলিশের গুলশান বিভাগের উপকমিশনার সুদীপ কুমার চক্রবর্তী মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। 

এ ঘটনায় মুনিয়ার বড় বোন বাদী হয়ে গুলশান থানায় এ মামলা করেছেন।

মৃত তরুণীর বড়বোন নুসরাত জাহান বলেন, আমি নিজে বাদী হয়ে গুলশান থানায় মামলা করেছি। মামলাটি হয়েছে সুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) সায়েম সোবহান আনভীরের বিরুদ্ধে। বিস্তারিত...

বিশিষ্ট শিল্পপতির ছেলের বিরুদ্ধে।

মোসারাত জাহান মুনিয়া

এ বিষয়ে পুলিশের গুলশান বিভাগের উপকমিশনার সুদীপ কুমার চক্রবর্তী বলেন, ‘মোসারাত জাহানের বাড়ি কুমিল্লা শহরে। তার বাবা বীর মুক্তিযোদ্ধা শফিকুর রহমান। মেয়েটির পরিবার কুমিল্লায় থাকে। এখানে ওই ফ্ল্যাটে তিনি একাই থাকতেন।’

সুদীপ কুমার চক্রবর্তী বলেন, রাতে মুনিয়ার বড় বোন নুসরাত জাহান বাদী হয়ে ৩০৬ ধারায় আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগ এনে গুলশান থানায় মামলা করেন। মামলা নম্বর-২৭। মামলার আসামি করা হয়েছে দেশের একটি শীর্ষ শিল্পগ্রুপ বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) সায়েম সোবহান তানভীর এর বিরুদ্ধে। 

এদিকে আনভির বিদেশ চলে যাচ্ছেন এমন সমালোচনায় সোশ্যাল মিডিয়া সরব ছিলো। এসব আলোচনা-সমালোচনার মাঝেই লাশ উদ্ধারের ঘটনায় করা মামলায় বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) সায়েম সোবহান আনভীরের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছেন আদালত। বিস্তারিত...

অন্যদিকে, মুনিয়ার লাশ উদ্ধারের ঘটনায় তার পরিবারকে আইনি সহায়তা দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার সায়েদুল হক সুমন।

বুধবার (২৮ এপ্রিল) সাংবাদিকদের কাছে এ কথা বলেন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির আইন বিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার সুমন।

এ বিষয়ে ব্যারিস্টার সুমন গণমাধ্যমকে জানান, মোসারাত মুনিয়ার বাবা-মা কেউ পৃথিবীতে নেই। এই এতিম মেয়ের জন্য আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি, যদি ভালো আইনজীবী না পান তারা তাহলে আমি মুনিয়ার পক্ষে আদালতে দাঁড়াতে চাই। তার পরিবারকে আমি আইনি সহায়তা দিতে চাই বিনামূল্যে। বিস্তারিত...

আইনিউজ/এসডি

Green Tea
সর্বশেষ
জনপ্রিয়