ঢাকা, বৃহস্পতিবার   ০৭ জুলাই ২০২২,   আষাঢ় ২৩ ১৪২৯

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ১৫:৫০, ২৪ এপ্রিল ২০২২

সংক্রমণ বাড়তে পারে, সচেতন থাকতে হবে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী

বাংলাদেশের প্রতিবেশী দেশগুলোতে ফের করোনা সংক্রমণ বাড়ছে উল্লেখ করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, আমাদেরও সংক্রমণ বাড়তে পারে। এজন্য সচেতন থাকতে হবে।

রোববার (২৪ এপ্রিল) মহাখালী জনস্বাস্থ্য পুষ্টি প্রতিষ্ঠান (নিপসম) অডিটোরিয়ামে জাতীয় পুষ্টি দিবস ২০২২ এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

বাংলাদেশে এখন খুব একটা লোকের করোনা টিকা নেওয়ার বাকি নেই উল্লেখ করে তিনি বলেন, যারা টিকা পায়নি তারা টিকা দিতে চায় না। অনেকে নেপাল ও ভুটানের সঙ্গে মিলায়, কিন্তু তাদের জনসংখ্যা কম। আমরা দিনে এক কোটি টিকাও দিয়েছি। ১৩ কোটি মানুষকে টিকা দিয়েছি।

জাহিদ মালেক আরো বলেন, মানুষের গড় আয়ু এখন ৭৩ বছর। ভালো খাবার খেলে শরীর সুস্থ থাকে। ভালো খাওয়া বলতে পুষ্টিকর খাবার। আমাদের দেশে পুষ্টি সেবার অনেক উন্নতি হয়েছে। উন্নয়ন হয়েছে প্রাইমারি হেলথ কেয়ারে। মানুষকে এর মাধ্যমে সেবার পাশাপাশি কী খেতে হবে কী খাওয়া উচিৎ নয় তাও শিক্ষা দেওয়া হয়। আমরা লবণ পরিহার করতে বলি। অতিরিক্ত তেলযুক্ত খাবার বর্জন করতে বলা হয়।

আরও পড়ুন- সব স্থাপনায় অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থা নিশ্চিতের তাগিদ প্রধানমন্ত্রীর 

তিনি বলেন, সংক্রামক ব্যাধি টিবি, পোলিও ও ম্যালেরিয়ার মতো রোগ কন্ট্রোলে রাখতে পেরেছি। এজন্য মৃত্যুর হার কমেছে। কিন্তু আমাদের অসংক্রামক রোগ বাড়ছে অনেক। ক্যানসারের মতো রোগ বাড়ছে। এসবের জন্য খাদ্যাভ্যাস ও জীবনাচরণের দিকে নজর দিতে হবে। এমন খাবার খেতে হবে যেটা আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়বে।

এখন মানুষ গড়ে ১২০টা ডিম খায় উল্লেখ করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে মানুষের ক্যালোরিও আশপাশের দেশ থেকে বেশি। এখনো দরিদ্রসীমার নিচে ১০-১৫ শতাংশ মানুষ আছে তা জানি। কিন্তু আমাদের খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা আছে।

আরও পড়ুন- ঈদে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর পাচ্ছে ৩২ হাজার ৯০৪ পরিবার

তিনি বেশি করে ফল খাওয়ার জন্য উৎসাহ দিয়ে বলেন, এখন ফলের সিজন। বেশি করে ফল খেলে শরীর সুস্থ থাকবে। এর সঙ্গে ডিম-দুধ খাওয়াতে হবে। দেশের মানুষ আগে খর্বাকৃতির ছিল। যেটা আগে ৫০ শতাংশ ছিল এখন তা ৩০ শতাংশে নেমে এসেছে।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. লোকমান হোসেন মিয়া, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এবিএম খুরশীদ আলম, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের (স্বাচিপ) সভাপতি অধ্যাপক ডা. ইকবাল আর্সলান, মহাসচিব অধ্যাপক ডা. এমএ আজিজ, বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) মহাসচিব ডা. এহতেশামুল হক চৌধুরী, জনস্বাস্থ্য পুষ্টি প্রতিষ্ঠানের পরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসির উদ্দিন মাহমুদ এবং জাতীয় পুষ্টি পরিষদের ভারপ্রাপ্ত মহাপরিচালক ডা. জুবাইদা নাসরীন প্রমুখ।

আইনিউজ/এসডিপি

আইনিউজ ভিডিও

বৃদ্ধ বয়সে নামাজ পড়তাম, ঘরে বসে খাইতাম, কে খাওয়াবে! 

বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় দৌড়ে অন্ধ শিক্ষার্থীদের ক্ষিপ্রগতি দেখে সবাই মুগ্ধ

Green Tea
সর্বশেষ
জনপ্রিয়